মুখ্যমন্ত্রীর কড়া বার্তায় সচল ভূমি দফতর, খাদানে জেসিবি ভ্যানিশ, গ্রামবাসীরা বলছেন ভিন্ন কথা

0
412

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ বালি খাদান নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া নির্দেশের পর নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। নদী থেকে অবৈধভাবে বালি তোলা যাতে না হয় সেদিকে নজর দিয়েছে প্রশাসন। মেদিনীপুর সদর ব্লকের কঙ্কাবতী এলাকায় কাসাই নদী থেকে মাত্র কয়েকদিন আগেও জেসিবি মেসিন দিয়ে অবৈধ খাদান থেকে দেদার বালি তোলা হচ্ছিল। বুধবার চিত্রটা অনেকটাই বদলেছে। জেসিবি মেসিনের পরিবর্তে কোদাল বেলচা দিয়েই ব্যবসায়ীরা বালি তুলছেন। তবে স্থানিয় বাসিন্দাদের বক্তব্য মাঝে মাঝে এরকম কড়াকড়ি হলে ১০-১৫ দিন ঠিকঠিক ভাবে বালি তোলা হয়, তারপর যেই কে সেই। সদর ব্লকের মণিদহ বেড়াপাল প্রভৃতি এলাকায় কাঁসাই নদী থেকে বালি তোলার চিত্রটাও বদলেছে। বাসিন্দাদের বক্তব্য, এমনটা মাঝে মধ্যেই হয়। ১০-১৫ দিন কড়াকড়ি থাকে, তারপর আবারও যেই কে সেই হয়ে যায়। বাসিন্দাদের আরও অভিযোগ, অবৈধভাবে বালি তোলা আটকানো কোনও মতেই সম্ভব নয়, কারণ অবৈধ বালির টাকা পুলিশ, ভুমিসংস্কার দফতরের একাংশ এবং স্থানীয় নেতাদের পকেটে যায়। তাই কেউই এই রোজগার বন্ধ করতে চায় না। মুখ্যমন্ত্রী মঙ্গলবার মেদিনীপুরে প্রশাসনিক সভায় অবৈধ বালি খাদান নিয়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেন। মুখ্যমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায়-“আমি বলার পর কিছুদিন বন্ধ থাকে, তারপর যেই কে সেই হয়। নদী পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলিকে টিকিয়ে রাখতে হলে যথেচ্ছভাবে বালি তোলা যাবে না।”