বালিয়াড়ি ধ্বংস ও তারস্বরে মাইক বাজিয়ে দিঘায় উৎসব ঘিরে প্রশ্ন উঠেছে

0
1471

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ পর্যটকদের ভিড়ে ভরা মরসুমে একটি বেসরকারি সংস্থা উইন্টার কার্ণিভ্যাল করে নিজেদের পকেট ভরছে। অন্যদিকে নির্বিচারে দিঘায় বালিয়াড়ি ধ্বংস করল খোদ দিঘা শংকরপুর উন্নয়ণ পর্ষদ। শুরু বালিয়াড়ি ধ্বংসই নয়, এই উৎসব-এর কারনে গত ছয় সাত দিন ধরে গভীর তার অবধি উচ্চস্বরে সরকারি আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মাইক বাজলেও প্রশাসন কোনও ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ। একটা বেসরকারি সংস্থাকে কেন নানাভাবে সহায়তা করা হচ্ছে সরকারি উদ্যোগে তাই নিয়ে প্রশ্ন উঠছে সৈকত শহর জুড়ে।

গত সাত বছরে দিঘা সহ চার সৈকত শহরের সৌন্দর্যায়নে ও পরিকাঠামো উন্নয়নে একের পর এক উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই প্রচেষ্টাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে প্রতি বছর সৈকত উৎসবের আয়োজন করা হয় সরকারি উদ্যোগে। চলতি বছরে সেই উৎসব চলার মধ্যেই কেন একটা বেসরকারি সংস্থাকে নতুন দিঘায় ২৩-৩১ ডিসেম্বর অবধি সৈকত উৎসব (উইন্টার কার্নিভাল) করার অনুমতি দিল প্রশাসন তাই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আর সেই সংস্থার অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করতে কেন বালিয়াড়ি নষ্ট করতে হয় দিঘা-শংকরপুর উন্নয়ন পর্যদকে তাই নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। এর উপরে গভীর রাত অবধি উচ্চস্বরে মাইক বাজছে গত ছয় সাত দিন ধরে। স্থানীয় ব্যবসায়ী তপন মাইতি, অনির্বাণ চন্দরা প্রশ্ন দিঘাকে আন্তর্জাতিক পর্যটন মানচিত্রে তুলে আনার নামে এক বেসরকারি সংস্থাকে উৎসব করার অনুমতি দিয়ে ভরা মরসুমে স্থানীয়ে ব্যবসায়ীদের পেটে মারার কী দরকার ছিল উন্নয়ন পর্ষদের।