ঝাড়গ্রামে পরপর নেকড়ের আক্রমণ, ৪ মহিলা সহ জখম ৮, সব এলাকায় আতঙ্ক

0
276

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ঝাড়গ্রামে নেকড়ের আক্রমণে জখম হয়েছেন ৪ জন মহিলা সহ ৮ জন গ্রামবাসী। এদের সকলকেই ঝাড়্গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জখম এক গৃহবধু মালিনী মাহাতোর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় পরে তাঁকেও মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

আক্রমণের প্রথম ঘটনাটি ঘটে সাপধরা অঞ্চলের শিমূলডাঙা গ্রামে। জানা গিয়েছে বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ির আঙিনায় ঝাঁট দিচ্ছিলেন গৃহবধু মালিনী মাহাতো। সেই সময় স্থানীয় মাংসডিহির জঙ্গল থেকে নেকড়েটি বেরিয়ে এসে হঠাৎ তাঁকে আক্রমণ করে। আক্রান্ত গৃহবধুর চিৎকার শুনে তাঁর কাকা ধীরেন মাহাতো ছুটে এলে তাঁকেও কামড়ে দেয় নেকড়েটি। এরপর গ্রামবাসীরা সকলে লাঠিসোটা নিয়ে তাড়া করলে নেকড়েটি মাংসডিহির জঙ্গলে পালিয়ে যায়। নেকড়ের আক্রমণের ঘটনা ঘটে পসরো, কুণ্ডলডিহি, নেদাবহড়া, জারুলিয়া গ্রামে। ছটি গ্রামের সাতজন নেকড়ের আক্রমণে জখম হয়েছেন । কুণ্ডলডিহিতে বকুল মাহাতো, জারুলিয়াতে ভূষণ মাহাতো ও পার্বতী সিং এবং ঘটিডোবাতে সুজলা সিং জখম হয়েছেন। এর ফলে আতঙ্কে রয়েছেন এলাকার মানুষ। নেকড়ের আক্রমণের খবর পেয়ে ঐ সকল গ্রামে ছুটে যান বন দফতরের কর্মীরা। ঘটনাস্থলে পৌঁছন ঝাড়গ্রামের ডি এফ ও বাসবরাজ হোলেইচিl তাঁর উপস্থিতিতে নেকড়েটিকে ধরতে ফাঁদ পাতা হয় ঘৃত খামের জঙ্গলেl ডিএফও জানিয়েছেন, নেকড়েটি আহত হয়ে পাগল হয়ে যাওয়ার কারণে আক্রমণ করছেl তাকে ধরতে বনকর্মীরা খাঁচা পেতেছেনl মাইকে প্রচার করে সতর্ক করা হচ্ছে গ্রামবাসীদেরl তাদের জঙ্গলে যেতেও বারণ করা হয়েছেl এছাড়া আক্রান্তদের চিকিৎসার সবরকম সাহায্য বনদপ্তর থেকে করা হচ্ছে।

ঝাড়গাম বন বিভাগ সূত্রে খবর , ঝাড়গ্রাম, নয়াগ্রাম, জামবনি, বিনপুর ও লালগড় এলাকার বেশকিছু জঙ্গলে নেকড়ের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য ভাবে বাড়ছেl মাসখানেক আগে জামবনিতে দুজন গ্রামবাসীকে একটি নেকড়ে বীভত্‍সভাবে আক্রমণ করেl আক্রান্তদের একজনের মৃত্যু হয়l আজকের এই আক্রমণের ঘটনার পর জঙ্গল লাগোয়া বিভিন্ন গ্রামের যুবকেরা অস্ত্র হাতে গ্রাম পাহারায় নেমেছে l