প্রতিবন্ধকতা দারিদ্র, তাকে জয় করেই মাধ্যমিকা ভাল ফল তিন ছাত্রছাত্রীর

0
1216

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ দারিদ্রের প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে মাধমিক পরীক্ষায় সাফল্য লাভ করেছে বহুকৃতী ছাত্রছাত্রী। অনটনকে দূরে ঠেলে মাধ্যমিকে ৬০৩ নম্বর পেয়েছে শালবনি নিচু মজুরি বালিকা বিদ্যালয়ের লক্ষী সিংহ। বাড়ী মহাশোল কলোনিতে। বাবা বাবলু সিংহ খেত মজুর। লক্ষীর এক ভাই, এক বোন রয়েছে। ভবিষ্যতে সে ডাক্তার হতে চায়। কিন্তু উচ্চমাধ্যমিকা বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করার মতো আর্থিক ক্ষমতা তার বাবার নেই। বাবলু সিংহ মেয়েকে কলা বিভাগে পড়ার কথা বলছেন। মেয়ে লক্ষী এখন কী করবে তাই ভাবছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা বাসবী তাওয়ার বলেন, লক্ষীর পড়াশোণার জন্য আর্থিক কোণও সমস্যা হবে না। বিদ্যালয় থেকে সব রকম সহযোগিতা করা হবে। চুয়াডাঙা হাইস্কুলের আরজাউর মণ্ডল মাধ্যমিকা পেয়েছে ৬০৬ নম্বর। তার বাবা হাবিব মণ্ডল দিন মহুর। কোনও রকমে সংসার চালান। ভবিষ্যতে শিক্ষক হতে চায় আরজাউর। সদর ব্লকের ছেড়ূয়া গ্রামে তার বাড়ি। আরজাউররা তিন ভাই বোন। বিজ্ঞান নিয়ে পড়তে চায় আরজাউর। কিন্তু সমস্যা আর্থিক অনটন। শেষ পর্যন্ত পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারবে কিনা সেই চিন্তা তড়িয়ে বেড়াচ্ছে। ঐ বিদ্যালয়ের পরধান শিক্ষক শুভেন্দু সিনহা বলেছেন পড়াশোনার জন্য আর্থিক অনটন যাতে কারও প্রতিবন্ধকতা না হয় সেদিকা আমাদের নজর থাকে। আরজাউয়ের ক্ষেত্রেও তাঁদের নজর থাকবে। শহরের নির্মল হৃদয়ের ছাত্রী সাহানাজ খাতুন এবার মাধ্যমিকে ৬০১৬ নম্বর পেয়েছে। তার বাবা সেক শাহাজাহান ভাড়া করে টোটো চালান। ভবিষ্যতে সাহানাজও ডাক্তার হতে চায়। আর্থিক সমস্যা তার স্বপনকে চুরকার করে দেবে না তো? শুধু এই ভাবনাতেই রয়েছে ঐ ছাত্রী। ভেবে কুলকিনারা পাচ্ছে না সে।