জঙ্গলমহলের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান পরিবহনমন্ত্রীর

0
920

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি নেতাই গ্রামে  সিপিএমের সশস্ত্র  শিবির থেকে গ্রামবাসীদের  লক্ষ করে গুলি চালনার অভিযোগ ওঠে।  গুলিতে নিহত হন ৪ জন মহিলা সহ ৯ জন গ্রামবাসী। অাহত হন ২৮ জন। সেই ঘটনায় তোলপাড় হয় রাজ্য রাজনীতি।  নেতাই কান্ডে গ্রেফতার হয়ে জেলবন্দি রয়েছেন লালগড়ের প্রথম সারির সিপিএম নেতারা। রাজ্যে তৃণমূল ক্ষমতায় অাসার পর ২০১২ সাল থেকে প্রতি বছরই পালিত হয় নেতাই দিবস। এই বিশেষ দিনটিতে সব সময়ই শহিদদের  তর্পণ করতে অাসেন শুভেন্দু অধিকারী।       

অাজ লালগড়ে নেতাই গ্রামে শহীদদের তর্পণ করতে এসে গ্রামবাসীদের বলেন ঐক্যবদ্ধ  থাকতে হবে। সিপিএম জামা পাল্টিয়ে গেরুয়া হয়ে কোথাও  ভাষা কোথাও জাত, সম্প্রদায়, ধর্মের নামে মানুষকে বিভাজন করার চেষ্টা করছে  জঙ্গল মহল  ঐক্যবদ্ধভাবে  উন্নয়ন ও শান্তিকে ধরে রাখার জন্য দিদির  সঙ্গে  থাকবেন তৃণমূলের সাথে থাকবেন এই ভাবনা নিয়ে বাড়ি যাবেন। শুভেন্দু অধিকারী অারও  বলেন, ৯ জন  শহীদ পরিবার চাকরির ব্যবস্হা হয়েছে। শহীদ পরিবার ও অাহত পরিবারদের চোখের জল পড়তে দেব না, অামি শুভেন্দু অধিকারী যতদিন বেচে থাকব ঔই পরিবারগুলি মোটা কাপড়, মোটা চাল, মোটা ভাতের অভাব হবে না পরিবারগুলির। শহীদ পরিবারগুলিকে ১০০০০ টাকা, অাহত পরিবারগুলিকে ৫০০০ টাকার অার্থিক সাহায্য তুলে দেন।                                  

অাজকে নেতাই শহীদ স্মরন সভার অনুষ্ঠানে উপস্হিত ছিলেন মন্ত্রী সৌমেন মহাপাএ,    চূড়ামনি মাহাতো, বিধায়ক দীনেন রায়, দুলাল মুর্মু, সুকুমার হাসদা, পশ্চিম মেদিনীপুর  জেলা সভাধিপতি উত্তরা সিং হাজরা, সহ সভাধিপতি  অজিত মাইতি,জেলা যুবর  রমাগিরি, সুদীপ মন্ডল প্রমুখ।