সরস্বতী পুজোর দিনে মেদিনীপুর শহরের রাস্তায় চলল গুলি, আতঙ্কে শহরবাসী

0
5887

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ সরস্বতী পুজোর দিন রবিবার মেদিনীপুর শহরের বিভিন্ন জায়গায় দাপিয়ে বেড়াল দুষ্কৃতীরা। কোথাও দুষ্কৃতিরা বাড়িতে ঢুকে বন্দুক দেখিয়ে ধমক দিয়ে যায়। শহরে দুষ্কৃতীরা উত্তেজনা ছাড়ানোর চেষ্টা করছে বলে অনেকের ধারনা।

এদিন বিকেল ৪টা নাগাদ সিপাইবাজার থেকে খাপ্রেল্বাজার যাওয়ার রাস্তায় দুষ্কৃতীরা মোটর সাইকেল নিয়ে ঢুকে গুলি চালায়। অনেক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন একটি মোটর সাইকেলে দুজন দুষ্কৃতী ছিল। ঐ রাস্তায় দু’তিন জায়গায় তারা গুলি চালায়। ৭-৮ রাউন্ড গুলি চলে বলে অনেকে জানিয়েছেন। যদিও পুলিশ জানিয়েছে, একটি জায়গায় গুলি ছুঁড়েছিল দুষ্কৃতীরা। একটি কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার পরই তদন্তে নামে কোতোয়ালি থানার পুলিশ। রাস্তায় ধরে দোকানগুলির সি সি টিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে। সেই ফুটেজ একটি মোটর সাইকেলে দুই দুষ্কৃতীকে যেতে দেখা গিয়েছিল। প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য গুলি চালানোর সময় দুষ্কৃতীদের একজন নিজেকে রাজা বলে জাহির করেছিল।

এদিন মহাতাবপুরে একটি বাড়িতে ঢুকে বন্দুক দেখিয়ে ধমক দেয়। বেরিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার মানুষজনকে বন্দুক দেখিয়ে ভয় ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করে। কলেজ মাঠের কাছেও দুষ্কৃতীরা বন্দুক দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী লোকজনকে ভয় দেখায়। এছাড়াও বক্সীবাজার এলাকায় সরস্বতী প্রতিমা দেখতে বেরোনো ছাত্রীদের কটুক্তিকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনা ঘটে। কটুক্তির প্রতিবাদ করলে বাইরে থেকে বাইকে যাওয়া দুষ্ক্ররতীরা মারধর করে বলে জানিয়েছেন শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি বিশ্বনাথ পান্ডব। তিনি বলেন দুষ্কৃতীরা শহরে ভয় ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করার চক্রান্ত করছে। শহরের শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশকে আরও সতর্ক হতে হবে। তা না হলে যে কোনও সময় দুষ্কৃতীরা বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়ে দেবে। একই কথা জেলা কংগ্রেস সভাপতি সৌমেন খান জানিয়েছেন, পুজোর দিনে যেভাবে শহরের একাধিক জায়গায় দুষ্কৃতীরা বন্দুক নিয়ে দাপাল তা নিয়ে সবার চিন্তা বেড়ে গিয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি শহরের মানুষকেও দুষ্কৃতীদের প্রতিরোধ করে এক হয়ে কাজ করতে হবে। বাইরের দুষ্কৃতীরা শহরের কয়েকজন যুবকের সহযোগিতায় আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ভয় ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করার চক্রান্ত করছে। তিনি এও বলেন, শহরের মদ্যপ ও বিভিন্ন নেশায় আসক্ত যুবকদের সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে। মদ, গাঁজা নিয়ে প্রশাসনের কোনও অভিযানই হচ্ছে না।

যদিও পুলিশ জানিয়েছে, সরস্বতি পুজোর দিন একাধিক জায়গায় রাস্তায় রাস্তায় দুষ্কৃতীরা যেভাবে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঘোরাফেরা করেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।