ব্যবসা রক্ষা নাকি সবং এর প্রার্থী, আনিসুরের ইস্তফা নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

0
727

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ সরকারি ছুটির মধ্যেই সমস্ত বিদ্রোহ তুলে তমলুকের মহকুমা শাসকের অফিসে গিয়ে নিজের ইস্তফা পত্র জমা দিয়ে এসেছেন পাঁশকুড়ার পুরপ্রধান আনিসুর রহমান। তার প্রে কেটে গিয়েছে ৪৮ ঘন্টা। তবুও এই নিয়ে পুর্ব মেদিনীপুর জেলা জুড়ে জল্পনা তুঙ্গে। জল্পনার কারণ আনিসুরের পদত্যাগের কারণ এখনও খোলসা না করায়। বিদায়ী পুরপ্রধানের মতো তাঁর দলের জেলা ও রাজ্য নেতৃত্ব এই পদত্যাগের বিষয়ে স্পষ্ট ব্যাখ্যা না দেওয়ায় জল্পনা বাড়ছে। এর সঙ্গে বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়াতে আনিসুর রহমানের পক্ষে ও বিপক্ষে তাঁর সমর্থক বিরোধীদের নানা পোস্ট জল্পনাকে আরও বাড়াচ্ছে বলে জেলার রাজনৈতিক মহলের দাবি। পেশায় প্রাথমিক শিক্ষক হলেও আনিসুর রহমানের পাশকুড়ায় একটি নার্সিংহোম ও বি এড কলেজ আছে। সূত্রের দাবি, দল থেকে সাসপেন্ড হওয়ার পরেই এই দুই সংস্থার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক তোড়জোড় শুরু হয়েছে। রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি এর থেকে বিপদ আঁচ করেই বিদ্রোহে ইতি টেনেছেন আনিসুর। অন্য এক সূত্রের খবর, পশ্চিম মেদিনীপুর মনস ভূঁঞ্যার ছেড়ে যাওয়া সবং বিধানসভা কেন্দ্রে সম্ভাব্য প্রার্থী হওয়ার আশ্বাস পেয়েই ইস্তফা দিয়েছেন তিনি। রাজনৈতিক মহলের এই অংশের দাবি দল তাঁকে বহিষ্কার করলেও তিনি পদত্যাগের আগে পর্যন্ত এই নিয়ে কোথাও দলবিরোধী মন্তব্য করেননি। উল্টে নিজেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুগত সৈনিক বলে দাবি করেছেন। রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ পেলেই পুরপ্রধান পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন। ফলে দল ক্ষমতায় থাকায় তাঁর সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্তের সম্ভাবনা ক্ষীণ। পদত্যাগের পরেও দাবি করেছেন দলের নির্দেশ মেনেই পদত্যাগ করেছেন।