বালিচকে উড়াল্পুল নির্মাণে রেল বোর্ডের অনুমোদন, দ্রুত কাজ শুরুর দাবি উন্নয়ন কমিটির

0
232
প্রতীক চিত্র
কিংকর অধিকারী ঃ বহু প্রতিক্ষিত রেল বোর্ডের অনুমোদন এল দিল্লী থেকে। ফলে বালিচক উড়ালপুল নির্মাণের ক্ষেত্রে রেলের তরফ আর কোনো বাধা রইল না। বালিচক স্টেশন উন্নয়ন কমিটির সভাপতি সুভাষচন্দ্র মাইতি এবং যুগ্ম সম্পাদক কালীশঙ্কর গাঙ্গুলী বলেন, আর এক মুহুর্ত কাল বিলম্ব না করে রাজ্য সরকারের পূর্ত বিভাগ কাজ শুরু করুক। অবিলম্বে টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু হোক। তার আগে উড়ালপুল নির্মাণের কাজ চলাকালীন বড় যানবাহন চলাচলের জন্য শ্যামচক এবং রাধামোহনপুর দিয়ে উপযুক্ত রাস্তা নির্মাণের কাজ শুরু করুন। এতদিন রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে রেলের অনুমোদনের জন্যই কাজটি আটকে আছে বলে বলা হত। এখন আর সেই সমস্যা থাকছে না। এরপরও দ্রুততার সাথে কাজের প্রক্রিয়া শুরু না হলে বা টালবাহানা হলে বৃহৎ এলাকার মানুষকে সঙ্গে নিয়ে আমরা বড় ধরনের আন্দোলনর যাবো। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ দীর্ঘদিনের এই যন্ত্রনার হাত থেকে মুক্তি পেতে  দ্রুততার সাথে কাজটি এবার শুরু করুন।
প্রসঙ্গত গত ৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রেল ও সড়ক অবরোধে পূর্বেই ৭ ই সেপ্টেম্বর তৎকালীন ডিআরএম বালিচক স্টেশন উন্নয়ন কমিটির সঙ্গে বৈঠকে বসে অবরোধ তোলার অনুরোধ করেন এবং কথা দেন কিছুদিনের মধ্যেই তিনি দিল্লী থেকে রেল বোর্ডের অনুমোদন যাতে দ্রুত এসে পৌঁছায় তা দেখবেন। তারপরেও কমিটি অনড় থাকায় পরের দিন(৮ ই সেপ্টেম্বর) রেল ও রাজ্য প্রশাসনের যৌথ বৈঠকে লিখিত প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে এখন দিল্লী রেল বোর্ড থেকে দ্রুততার সাথে অনুমোদন এসে পৌঁছালো। এই কাজে সাধারণত দু’এক বছর লেগে যায়।  
কমিটির যুগ্ম সম্পাদক কিংকর অধিকারী এবং সহ সভাপতি ভারতরঞ্জন দে বলেন, আমরা মাননীয় ডিআরএম মহাশয়ের প্রতিশ্রুতি এবং এ ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য তাঁকে এবং রেল বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আর সংশ্লিষ্ট এলাকার জনসাধারণ যাঁরা এই আন্দোলনের পাশে থেকেছেন, সমর্থন এবং পরামর্শ দিয়েছেন তাঁদের সকলকেও আমরা আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। পাশাপাশি রাজ্যের সংশ্লিষ্ট পূর্ত দপ্তরের কাছে আবেদন আর কাল বিলম্ব না করে এবার টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে দ্রুততার সাথে কাজ শুরু করুন।