পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন নিয়ে তপ্ত জঙ্গলমহল, বাস ভাঙচুর, পুলিশের গাড়িতে আগুন

0
1761

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ঝাড়গ্রাম জেলায় পঞ্চায়েত বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার বেঁধে গেল। ঘটনার সুত্রপাত বেলপাহাড়ি ব্লকের ভুলাভেদা অঞ্চলের বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে। আজ সকালে বিজেপির বাড়া ভাতে ছাই দিয়ে আদিবাসী সমন্বয় মঞ্চ ভুলাভেদা গ্রাম পঞ্চায়েতের দখল নিতেই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরি হয়। এই গ্রাম পঞ্চায়েতের ১২টি আসনের মধ্যে বিজেপি পায় ৭ টি এবং আদিবাসী সমন্বয় মঞ্চ ও তৃণমূল পায় ৫ টি। সেইমতো আজ বিজেপির বোর্ড গঠন করার কথা ছিল।

অভিযোগ, রবিবার রাতেই বিজেপির এক নির্বাচিত সদস্য মৌসুমি মন্ডলকে অপহরণ করে সমন্বয় মঞ্চের লোকজন। তবুও বাকি ৬ জন বিজেপি সদস্য সকালে প্রধান নির্বাচন প্রক্রিয়ায় যোগ দিতে আসার সময় তাদের বাধা দেওয়া হয় এবং পঞ্চায়েত অফিস পর্যন্ত তাদের পৌঁছতেই দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ জেলা বিজেপি নেতৃত্বের।

এই ঘটনার পর ঝাড়গ্রাম – পুরুলিয়া রাজ্য সড়কের তামাজুড়ি ও সিঁন্দুরিয়ায় পথ অবরোধ করে বিজেপি কর্মীরা। উত্তেজিত কর্মীরা ৩টি সরকারি বাসে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছলে পুলিশের ৩টি বাইকে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় জঙ্গল মহল জুড়ে।
একই ভাবে কাঁকো অঞ্চলে তৃণমূলের বিক্ষুব্ধ গোষ্ঠীকে ঠেকাতে একজন নির্দল প্রার্থী ও একজন বিজেপি প্রার্থীকে আটকে রাখার অভিযোগ ওঠে শাসক দলের বিরুদ্ধে। ওই ২ জন প্রার্থীকে আটকে রেখে তৃনমূল বোর্ড গঠন করে নেয় বলে অভিযোগ বিক্ষুব্ধ তৃণমূল এবং আদিবাসী সমন্বয় মঞ্চের। এই ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ সমন্বয় মঞ্চ ও বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মীরা ৫ নম্বর রাজ্য সড়কের মোহনপুরে পথ অবরোধ করে। এর ফলে ঝাড়গ্রাম থেকে দুর্গাপুর, আসানসোল, বাঁকুড়া ও পুরুলিয়া যাওয়ার বাসগুলি বন্ধ হয়ে যায়। নিত্যযাত্রীরা প্রচন্ড অসুবিধায় পড়েন। আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় এলাকায় বিশাল পুলিশ বাহিনী নামানো হয়।
জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানান, আদিবাসী সমন্বয় মঞ্চের লোকজন বিজেপি সদস্যদের পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে বাধা দেওয়ায় উত্তেজনা ছড়ায়। উত্তেজিত জনতা পুলিশের তিনটি বাইক জ্বালিয়ে দেয় এবং তিনটি সরকারি বাসে ভাঙচুর চালায়। ভুলাভেদার স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গতকাল রাতে একদল লোক এসে বাড়ি বাড়ি বলে যায় আজ সোমবার পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন না হওয়া পর্যন্ত কেউ যেন বাড়ির বাইরে না বের হয়। সকালে শুনলাম বিজেপির জয়ী প্রার্থীদের ৩/৪ জনকে রাস্তাতেই আটকে রেখে আদিবাসী সমন্বয় মঞ্চের লোকেরা পঞ্চায়েতের দখল নিয়ে নেয়।

খবর পাওয়া গিয়েছে, তৃণমূলকে আটকাতে ঐ সমন্বয় মঞ্চের নামে বিজেপির সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছে, এঁড়গোদা গ্রাম পঞ্চায়েতের দখল নেয়।