আনিসূর নন, নন্দকুমারই আপাতত বহাল থাকছেন পাঁশকুড়ার পুরপ্রধান পদে, নির্দেশ ডিভিশন বেঞ্চের

0
294
নন্দকুমার মিশ্র
পত্রিকা প্রতিনিধিঃ আনিসুর রহমান নন, নন্দকুমার মিশ্রই থাকছেন পাঁশকুড়া পৌরসভার চেয়ারম্যান। সিঙ্গল বেঞ্চের রায়ের উপর অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ দিয়ে আজ এই নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার ও বিচারপতি মৌসুমি ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ। জানিয়ে দেওয়া হয়, যতদিন না পর্যন্ত এই মামলার নিষ্পত্তি হচ্ছে ততদিন নন্দকুমার মিশ্রই পৌরসভার চেয়ারম্যান থাকবেন।
প্রসঙ্গত, এবার পাঁশকুড়া পৌরসভার নির্বাচনে ১৮টি আসনের মধ্যে ১৭টিতে জয়লাভ করে তৃণমূল। বাকি একটিতে জয়লাভ করে বিজেপি। বোর্ডের দখল নিয়ে তৃণমূলের অন্তর্দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে চলে আসে। দলের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সমর্থন নিয়ে চেয়ারম্যান হন আনিসুর। কিন্তু, দলের জেলা ও রাজ্য নেতৃত্ব আনিসুরকে সরিয়ে নন্দ মিশ্রকে চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনিত করে। সেই সঙ্গে আনিসুরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। দলবিরোধী কাজের জন্য তৃণমূল বহিষ্কার করলেও চেয়ারম্যান পদে বসেছিলেন আনিসুর রহমান। টানা একমাস ক্ষমতায় থেকে গত ৬ অক্টোবর পুজোর ছুটির দিনে জেলাশাসকের অফিসে ইস্তফা দেন। কিন্তু জটিলতার কারণে ইস্তফাপত্র গ্রহণ করা হয়নি। পরে চেয়ারম্যান পদ থেকে আনিসুরকে বহিষ্কারের আর্জি জানিয়ে ১০ জন কাউন্সিলর স্বাক্ষর করেছিলেন। সেই চিঠি পাঠানো হয়েছিল রাজ্য পৌর দপ্তরে। তারপরই ২৩ নভেম্বর রাজ্য পৌর দপ্তর আনিসুরকে বহিষ্কারের নির্দেশ লিখিতভাবে পূর্ব মেদিনীপুরের জেলাশাসককে জানিয়ে দেয়। সেই চিঠি জেলাশাসকের দপ্তরে পৌঁছনোর পর ২৪ নভেম্বর আনিসুরকে চেয়ারম্যান পদ থেকে পাকাপাকিভাবে বহিষ্কার করা হয়।
পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরের জয়েন্ট সেক্রেটারির নোটিসের বিরোধিতা করে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন আনিসুর। ১৩ ডিসেম্বর এই মামলার শুনানি হয়। মামলাকারীর আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য আদালতে জানান, বেআইনিভাবে তাঁর মক্কেলকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিচারপতি সুব্রত তালুকদার বলেন, “যে পদ্ধতিতে চেয়ারম্যান পদ থেকে আনিসুর রহমানকে অপসারণ করা হয়েছে, তা ঠিক নয়।” আনিসুর রহমানকে পাঁশকুড়া পৌরসভার চেয়ারম্যান পদে পুনর্বহালের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।
এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে যায় বর্তমান পৌরবোর্ড। আজ ডিভিশন বেঞ্চ, সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশের উপর স্থগিতাদেশ দেয়। সেইসঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হয়, যতদিন না পর্যন্ত এই মামলার নিষ্পত্তি হচ্ছে ততদিন নন্দকুমার মিশ্রই পৌরসভার চেয়ারম্যান থাকবেন।