পুরভোট না হওয়ায় ক্ষুব্ধ শহরবাসী, ভোটের প্রচারে প্রশ্নের মুখে পড়ছেন তৃণমূল কর্মীরা

0
802

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ মেদিনীপুর পুরসভার ভোটটা সময় মতো হল না কেন? প্রায় সাড়ে তিনমাস ধরে পরিষেবা থেকে মানুষ বঞ্চিত, তার কি হবে? ঠিক এমনই বিরক্তিকর প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হচ্ছে তৃণমূল নেতা কর্মীদের। লোকসভা ভোটের প্রচারের জন্য  ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রচার শুরু করেছেন তৃণমূল নেতা কর্মীরা। কন্যাশ্রী, শিক্ষাশ্রী, রূপশ্রী প্রভৃতি প্রকল্পের লিফলেট নিয়ে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন ওয়ার্ডের নেতা কর্মীরা। বেশিরভাগ জায়গাতেই শহরবাসীরা পাল্টা প্রশ্ন করছেন বেহাল পরিষেবা নিয়েই ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন সকলে। যদিও প্রশ্নের উত্তর দিয়ে শহরবাসীকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করছেন তৃণমূল নেতা কর্মীরা কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মানুষের ক্ষোভ প্রশমন করা যাচ্ছে না। তাই বাড়ি বাড়ি যেতে ব্যাপক বিড়ম্বনায় পড়ছেন তাঁরা।

মেদিনীপুর পুরসভার মেয়াদ ১৬ ডিসেম্বর শেষ হয়ে গিয়েছে সেই দিন থেকে প্রশাসক হিসেবে পুর পরিষেবার দখভাল করছেন মহকুমাশাসক। প্রতি ওয়ার্ডে জনপ্রতিনিধি না থাকায় ব্যাপকভাবে পরিষেবা বিঘ্নিত হচ্ছে বলে অভিযোগ। শহরবাসীর। ড্রেনের আবর্জনা নিয়মিত সাফাই হচ্ছে না, রাস্তার লাইট খারাপ হয়ে গিয়েছে, সময়মতো ও পর্যাপ্ত পানীয় জল আসছে না এইসহ একাধিক সমস্যায় জর্জরিত নাগরিকবৃন্দ। সমস্যার কথা জানানোর জন্য হাতের কাছে জনপ্রতিনিধি পাচ্ছেন না বলে তীব্র ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে শহরবাসীর মধ্যে। শুধু এলাকার সমস্যাই নয়, জন্ম বা মৃত্যু সার্টিফিকেট পেতেও হয়রানি হতে হচ্ছে শহরবাসীকে। আর এসব ক্ষোভ, নানাবিধ প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হচ্ছে তৃণমূল নেতা কর্মীদের। নেতা কর্মীদের কাছে থেকে সঠিক জবাব না পেয়ে আরও চটেছেন শহরের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষজন।

শহরবাসীর বক্তব্য, মেদিনীপুরের পুরসভায় নির্দিষ্ট সময়ে ভোট না হয়ে প্রশাসক দিয়ে পুরসভা চালানোর নজির ইদানিংকালে দেখা যায়নি। শহরবাসীই প্রশ্ন তুলছেন মানুষের রায় নিতে ভয় পাচ্ছে কেন সরকার? রবিবার মেদিনীপুরে নির্বাচনী প্রচার কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপি প্রার্থী দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন নিশ্চিত পরাজয় বুঝতে পেরেই মেদিনীপুর পুরসভার ভোট সময়মতো করল না সরকার, মানুষ নাগরিক পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন । শহরের বিভিন্ন মহলের বক্তব্য, লোকসভা ভোটে এর প্রভাব পড়তে পারে।