সাত শবরের মৃত্যুর পরেই জেলার লোধা-শবর অধ্যুষিত এলাকায় চলছে জীবন-জ্যোতি প্রকল্প

0
260
ফাইল চিত্র

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ লালগড়ে অস্বাস্থ্যকর পরিস্থিতির কারণে ৭ জন শবর মৃত্যুর পরেই টনক নড়ল জেলা প্রশাসন থেকে স্বাস্থ্য দফতরের। পিছিয়ে পড়া লোধা আদিবাসীদের জন্য স্বাস্থ্য সুরক্ষায় শুরু হল “জীবন জ্যোতি” প্রকল্প। এই প্রকল্পে আদিবাসী লোধাদের রুটিন স্বাস্থ্য পরীক্ষা কর্মসুচী নেবে স্বাস্থ্য দফতর। গত মাসে দুর্গা পুজার পর্বে ঝাড়গ্রাম জেলার লালগড়ে প্রত্যন্ত পুর্নাপানি সংসদের জঙ্গলখাস গ্রামে অস্বাস্থ্যকর পরিস্থিতির কারণে, চিকিত্সা না করিয়ে রোগে মৃত্যু হয়েছিল ৭ জন শবর বাসিন্দার। সংবাদ মাধ্যমে সেই খবর প্রকাশিত হতেই নড়ে বসেছিল স্বাস্থ্য দফতর। তাদের স্বাস্থ্যের হাল ফেরানোর সঙ্গে সঙ্গে জেলার সমস্ত স্থানে শবর ও আদিবাসীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার উদ্যোগ নেয় স্বাস্থ্য দফতর। সম্প্রতি রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর ও সচিবদের নিয়ে জেলাতে একটি এক্সচেঞ্জ বৈঠক হয়েছে। সেখানেই স্বাস্থকর্তারা ”জীবন জ্যোতি” নামে একটি প্রকল্পের চিন্তাভাবনা করেন। যেখানে মূলত আদিবাসী, লোধা-শবরদের স্বাস্থ্য নিয়ে বিশেষ উদ্যোগ লাগাতার ভাবে চলবে। এলাকায় এলাকায় ঘুরে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সেই উদ্যোগের অঙ্গ হিসেবে গত তিনদিন ধরে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার আদিবাসী-লোধা-শবর এলাকায় বিশেষ স্বাস্থ্য শিবির শুরু করল জেলার স্বাস্থ্য দফতর। ইতিমধ্যেই শালবনী, পিংলা, সবং, ডেবরা, কেশপুর, নারায়নগড় ও কেশিয়াড়ী এলাকায় এই ধরনের স্বাস্থ্য পরীক্ষা শুরু হয়ে গিয়েছে। জেলার মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ গিরিশচন্দ্র বেরা বলেন, ”এক্সচেঞ্জ বৈঠকে রাজ্যের আধিকারিকরা সম্মতি দিতেই জীবন জ্যোতি প্রকল্প শুরু হয়েছে। মূলত আদিবাসী, লোধা শবরদের রুটিন স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে এলাকায় ঘুরে ঘুরে। চিকিত্সা থেকে কেউ দূরে থাকতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে হবে।”