অবৈধ সম্পর্কের জেরে যুবকের অস্বাভাবিক মৃত্যু, অভিযুক্ত মহিলাকে বিবস্ত্র করে মোবিল ঢেলে নির্মম অত্যাচার, নিন্দার ঝড়

0
2084

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ এক মধ্যযুগীয় বর্বরতার ঘটনা ঘটল মেদিনীপুর সদর ব্লকের খয়রুল্লাচকে। এক গৃহবধুকে বিবস্ত্র করে, মাথায় চুল কেটে, গায়ে মোবিল ঢেলে, গোপনাঙ্গে বিছুটি পাতা ঘষে নির্মমভাবে শাস্তি দিল কয়েকজন। প্রায় দু-ঘন্টা ধরে বীভৎস ঘটনা ঘটতে থাকলে প্রতিবাদে এগিয়ে আসেনি গ্রামের একটি পুরুষ বা মহিলাও। পরে স্থানীয় বিজেপি নেতা সুজয় দাস খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অচৈতন্য গৃহবধুকে উদ্ধার করে মেদিনীপুর মেডিক্যাল হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত অচৈতন্য গৃহবধুর জ্ঞান ফেরেনি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন মহিলা অবস্থা সঙ্কটজনক।

ঘটনার সূত্রপাত গ্রামের এক যুবকের আস্বাভাবিক মৃত্যুকে কেন্দ্র করে। বৃহস্পতিবার গ্রামের যুবক সুভাষ ঘোষ (৪০)-এর বাড়ি  থেকে তাঁর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে গুড়গুড়িপাল থানার পুলিশ। সুভাষবাবুর স্ত্রী ও দুই পুত্র সন্তান রয়েছে। সুভাষবাবুর পরিবারের অভিযোগ, গ্রামেরই লোকজনের অভিযোগ, গ্রামেরই এক গৃহবধুর সঙ্গে সুভাষের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল। কিছু যাবৎ গৃহবধুর সঙ্গে সুভাষের চিড় ধরে। সেই কারনেই সুভাষ হয়তো আত্মঘাতী হয়েছেন। সুভাষের মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য পুলিশ নিয়ে যাওয়ার পরই পরিস্থিতি ক্রমশ গরম হতে থাকে। এদিন দুপুর ২টা নাগাদ সুভাষের বাড়ির লোকজন ঐ গৃহবধুর বাড়িতে চড়াও হয়। গৃহবধুর এক শিশু কন্যা রয়েছে। গৃহবধুকে টেনে হিঁচড়ে অর্ধনগ্ন করে টেনে আনা হয়। এর পর সুভাষের বাড়ির গেটে গৃহবধুকে বিবস্ত্র করে গোপনাঙ্গে বিছুটি পাতা দিয়ে মারধর করা হয়। মাথার চুল কেটে দেওয়া হয়। গোটা গায়ে মোবিল ঢেলে দেওয়া হয়। মহিলা তখন অচৈতন্য হয়ে পড়েছেন। তখনও অত্যাচার থামেনি, বরং বীভৎসতা ক্রমশ বাড়তেই থাকে। ঘটনার সাক্ষী তখন গ্রামের কয়েকশো মহিলা-পুরুষ। প্রতিবাদ করতে এগিয়ে আসেনি কেউই। রাস্তায় পড়ে থাকে গৃহবধুর অচৈতন্য অর্ধনগ্ন শরীর। ঘটনার খবর পেয়ে এলাকায় বিজেপি নেতা সুজয় দাস গিয়ে মহিলাকে হাসপ্তালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। ঘটনা নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন অভিযুক্ত্রা। অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নেমেছে গুড়গুড়িপাল থানার পুলিশ। এই ধরনের বর্বরোচিত অত্যাচারের ঘটনায় বিভিন্ন মহলে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভর সৃষ্টি হয়েছে। বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাস ঘটনার নিন্দা করেছেন এবং ঘটনার যথাযথ তদন্তের দাবি করেছেন। শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি অজিত মাইতিও জানিয়েছেন, ঘটনাটি শুনেছি । ঐ ঘটনাটি খুবই নিন্দনীয়। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া দরকার।