রাস্তা নির্মাণকে ঘিরে কেশিয়াড়িতে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে

0
93
কেশিয়াড়িতে কুকাইতে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ
পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ফের প্রকাশ্যে এল শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব। কেশিয়াড়ি ব্লকের সাঁতরাপুর ৩ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের বেলমা গ্রামে রাস্তা তৈরি করা নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী একে অপরের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়। দীর্ঘদিন ধরে কুকাই থেকে সাঁতরাপুর প্রায় ৪ কিমি মোরাম রাস্তা বেহাল অবস্থায় রয়েছে। সোমবার কোনরকম প্রশাসনিক অনুমতি ছাড়াই ওই অঞ্চলের ৩ জন ঠিকাদার রাস্তায় মোরাম ফেলানো ও রাস্তা মেরামতের কাজ শুরু করে। তখনই ঐ অঞ্চলের কেশিয়াড়ি ব্লক সভাপতি জগদীশ দাসের অনুগামীরা বাধা দেয়। তারা বিনা টেন্ডারে কেন রাস্তায় কাজ শুরু হল সেই নিয়ে জবাবদিহি করতে থাকে। এর উত্তরে মহকুমা কিষাণ ক্ষেত মজুরের সভাপতি ফটিক পাহাড়ীর অনুগামীদের বক্তব্য, তারা গ্রামবাসীদের সমর্থন নিয়ে নিজেদের খরচে রাস্তা মেরামতি শুরু করেছে, যেহেতু দীর্ঘদিন এই রাস্তায় কোন কাজ হয়নি, মানুষের প্রচুর অসুবিধা হচ্ছে। এবং নিজেদের গাড়ি পারাপার করতেও অসুবিধা হচ্ছে। তাই তারা নেজেরাই নিরুপায় হয়ে এই রাস্তা মেরামতের কাজ শুরু করেছে। কিন্তু এই কথায় সায় দেয়নি জগদীশের অনুগামীরা। তাদের বক্তব্য কাজটা কাজের মতো হোক, সামান্য নিম্নমানের মোরাম নিয়ে এসে কাজ শুরু করে গ্রামের লোককে ভুল বুঝিয়ে ধোঁকা দেওয়া হচ্ছে। এভাবে কাজ হলে রাস্তা আরও জগন্য হয়ে যাবে। অবিলম্বে এই কাজ বন্ধ করা হোক । বিষয়টিকে নিয়ে দুই গোষ্ঠীর মধ্য বচসা ও থানা পুলিশ হয়। ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে উভয়ের বক্তব্য শুনে দ্রুত কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় ফটিক অনুগামীদের। কিন্তু পুলিশের কথা অমান্য করে ফের মঙ্গলবার কাজ শুরু করে দেয় ঠিকাদাররা। ওই কাজে যাতে বাধার সৃষ্টি না হয় তার জন্য শতাধিক তৃণমূল সমর্থক পতাকা নিয়ে  মিছিল করে হাজির হয় ঘটনাস্থলে এবং কাজ চালিয়ে যায়। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে প্রশাসনিক বাধা থাকা সত্ত্বেও নিম্নমানের মোরাম দিয়ে কাজের পেছনে কি নিছক সমাজসেবা না এর পেছনে কোনও রাজনৈতিক কারণ রয়েছে।