জেলা জুড়ে ‘কালা দিবস’ পালন তৃণমূল কংগ্রেসের, প্রতিবাদ সভা

0
154

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ অসমের শিলচরে তৃণমুল সাংসদ মন্ত্রী প্রতিনিধিদলকে হেনস্থা করার প্রতিবাদে রাজ্যের অন্যান্য জায়গার সঙ্গে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতে শনিবার ‘কালা দিবস’ পালন করে তৃণমুল কংগ্রেস। জেলার প্রতিটি ব্লক এলাকায় প্রতিবাদ সভা ও মিছিল করা । দাবি জানানো হয় ঐ ঘটনায় যুক্ত থাকা পুলিশদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার অসমে গিয়েছিলেন তৃণমূলের ঐ প্রতিনিধিদল। শিলচর বিমান বন্দরে যেতেই প্রতিনিধিদলকে আটকে দেয় ঐ রাজ্যের পুলিশ। প্রতিনিধি দলের সদস্যদের হেনস্থা এমন কী মারধর করা হয় বলে তৃণমূলের অভিযোগ। ঘটনার পর তৃণমুল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় শনিবার ও রবিবার দু’দিন কালা দিবস পালন করার কথা ঘোষণা করেন। সেই মতো এদিন জেলা জুড়ে প্রতিবাদ সভা ও মিছিল করে তৃণমুল। যুব তৃণমুল কংগ্রেসের উদ্যোগে জেলাশসকদের দফতরের সামনে প্রতিবাদ সভা করা হয়। বিজেপির সভাপতি অমিত শাহের কুশপুতুলও দাহ করা হয়। উপস্থিত ছিলেন যুব তৃণমুলের জেলা সভাপতি রমাপ্রসাদ গিরি, কাউন্সিলর টোটোন সাসপিল্লি, সুজয় হাজরা, সৌরভ বসু, রাজু, মান্না , গোপাল সাহা, মোজাম্মেল হোসেন, বুদ্ধ মহাপাত্র প্রমুখ। সকলেই কালো ব্যাজ পরে সভায় সামিল হন। 

এদিন সবং, পিংলা, ডেবরা, দাস্পুর ও ঘাটালসহ অন্যান্য বলক এলাকাতেও অসমের ঐ ঘটনার প্রতিবাদে ‘কালা দিবস’ পালন করে তৃণমুল। দাসপুরের বিধায়ক মমতা ভূঞ্যাঁ, সবংয়ের বিকাশ ভূঁঞ্যার নেতৃত্বে প্রতিবাদ সভা হয়। এদিন বুকে কালো ব্যাজ লাগিয়ে মিছিল সংগঠিত করা হয় কেশিয়াড়িতেও। দলীয় নির্দেশে এদিন বিভিন্ন জায়গায় পাশাপাশি কেশিয়াড়ী ব্লকের বাঘাস্তি ৫ নম্বর অঞ্চলে কালা দিবস পালন করা হয়। তৃণমুলের কর্মী, সমর্থকরা পুলিশি হেনস্থা ও অসম্বাসীদের নাগরিকপঞ্জি থেকে চল্লিশ লক্ষ মানুষের নাম বাদ দেওয়ার প্রতিবাদ জানানো হয়। বাঘাস্তি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছ থেকে পলাশিয়া পর্যন্ত চলে মিছিল। এই মিছিল থেকে বিজেপি সরকারের নানা কুৎসা ও অপপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদও জানানো হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন কেশিয়াড়ী ব্লক তৃণমুলের সভাপতি পবিত্র শীঠ, ব্লকের তৃণমুল নেতৃত্ব বিষ্ণুপদ দে, রামপদ সিং, সঞ্জয় গোস্বামী, তৃণমুল নেতৃত্ব পরিতোষ পড়িয়ারী, প্রশান্ত খাটুয়া, ও অন্যান্যরা। তৃনোমূলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আজ, রবিবারও জেলাজুড়ে দলীয় নেতৃত্বরা প্রতিবাদ সভা করে বিক্ষোভ দেখাবেন।