জেলা জুড়ে যথাযোগ্য পালিত হল মর্যাদায় ‘বাইশে শ্রাবণ’

0
706

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ দুই মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম জেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হল কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রয়াণ তিথি।  

শহরের রবীন্দ্র স্মৃতি সমিতির উদ্যোগে কবি প্রণাম অনুষ্ঠিত হল রবীন্দ্র স্মৃতি সমিতির উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রয়াণ দিবস ‘বাইশে শ্রাবণ’। ‘তোমার গীতি ,জাগালো স্মৃতি,নয়ন ছলছলিয়া’ এই ভাবনাকে সামনে রেখে সকালে ও সন্ধ্যায় নানা কার্যক্রম ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবিগুরু র গান, কবিতা আবৃত্তি ও নৃত‍্যের  মধ্য দিয়ে স্মরণ করা হলো হৃদয়ের কবি বিশ্বকবিকে। মেদিনীপুর শহরের রবীন্দ্র নগরে অবস্থিত রবীন্দ্র স্মৃতি সমিতির নিজস্ব  প্রেক্ষাগৃহ রবীন্দ্র নিলয়ে।বুধবার সকালে কবি গুরুর মূর্তিতে মাল‍্যদান ও বৃক্ষরোপণের মধ্য দিয়ে কর্মসূচির সূচনা হয়। স্বাগত ভাষণ দেন সমিতির সহ-সভাপতি অতুল কৃষ্ণ মন্ডল।উদ্বোধনী সঙ্গীত পরিবেশন করেন “সংকলন” সাংস্কৃতিক সংস্থার শিল্পীরা। প্রাতঃকালীন কবিপ্রণাম অনুষ্ঠানে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপস্থাপন করেন স্বরলিপির শিল্পীবৃন্দ। সান্ধ্যকালীন অনুষ্ঠানের সূচনা হয় ‘নান্দনিক’ সংস্থার শিল্পীদের দ্বারা উদ্বোধনী সংগীতের মধ্য দিয়ে। সন্ধ্যায় একক সঙ্গীত, আবৃত্তি,একক নৃত্য, সমবেত নৃত্য, সমবেত আবৃত্তি, যন্ত্রসংগীত প্রভৃতির মাধ্যমে মনমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে স্মরণ করা হলো রবি ঠাকুরকে। যৌথ উপস্থাপনায় অংশগ্রহণ করলেন ক্রিয়েটিভ ড‍্যান্স একাডেমী, নৃত্যনীড়,খেয়া এক অনন্য দিশারী, আলেখ‍্যায়তন আর্ট অ‍্যান্ড কালচারাল একাডেমী ও স্বর আবৃত্তির শিল্পীরা।অন‍্যদিকে একক সঙ্গীত ,একক নৃত্য, আবৃত্তি ও যন্ত্রসংগীতে অংশ নিলেন অর্পিতা সেন,শিখা চক্রবর্তী, ঈশিতা গোস্বামী, পম্পি খামরই, রাজপ্রীতি সেন,কনক রঞ্জন দে, মালবিকা পাল, কৌস্তুভ বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়,কৃশানু আচার্য,মেহুলী দেবনাথ,সোমা মন্ডল, ঐশ্বর্যা মাইতি,পলি পাহাড়ি,জাহির চৌধুরী, পাঞ্চালি চক্রবর্তী,ঝুলন মুখার্জি,ঋতপা দাস,পালোমা মিত্র,অদ্রিজা ত্রিপাঠী, বিদেশ বসুসহ অন্যান্য শিল্পীরা। গোটা অনুষ্ঠানটি তত্ত্বাবধাযন করলেন রবীন্দ্র স্মৃতি সমিতির সভাপতি অধ্যাপক জগবন্ধু অধিকারী, সাধারণ সম্পাদক লক্ষণ ওঝা, সাংস্কৃতিক সভাপতি জয়ন্ত সাহা, সাংস্কৃতিক সম্পাদক হায়দার আলি প্রমুখ কর্মকর্তাগণ।অনুষ্ঠানে অন‍্যান‍্যদের মধ‍্যে উপস্থিত ছিলেন বর্ষীয়ান আবৃত্তিকার অমিয় পাল,অধ‍্যাপক বিশ্বজিৎ সেন, সাহিত্যিক বিদ‍্যুৎ পাল,কবি অঞ্জন শিকদার, বনবিভাগের আধিকারিক অয়ন ঘোষ প্রমুখ বিশিষ্ট ব‍্যাক্তিবর্গ সহ সাংস্কৃতিক জগতের অন‍্যান‍্য বিশিষ্ট জনেরা। পাশাপাশি এদিন দুপুরে সদর মহকুমা ঠিকাদার সমিতির উদ্যোগে রবীন্দ্র নিলয়ে একটি রক্তদান শিবির অনুষ্ঠিত হয়।

মেদিনীপুর সদর ব্লকের হাতিলল্কার কদমতলা বাজারে অবস্থিত দি গার্ডেন ইন্টার ন‍্যাশানাল স্কুলে শ্রদ্ধার সঙ্গে পালিত হলো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৭তম প্রয়াণ দিবস। রবীন্দ্রনাথের ছবিতে মাল্যদান করেন স্কুলের প্রিন্সিপাল তপন মুখার্জি ,ম্যানেজিং কমিটির সদস্য সেলিম মল্লিক, ডিরেক্টর রাজ হোসেন প্রমুখ।রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের সামনে বক্তব্য রাখেন স্কুলের শিক্ষক সন্দীপ ঘোষ। রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন ও রবীন্দ্র কবিতা আবৃত্তি  করেন শিক্ষিকা প্রিয়াঙ্কা মাইতি , মৌসুমী রানা,শোভনা বরাট ,শাশ্বতী দাস মহাপাত্র এবং সাম্মা বেগম  প্রমুখ শিক্ষিকাগণ।স্কুলের ম্যানেজিং ডিরেক্টর রাজ হোসেন বলেন “ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের মেয়েদেরকে, রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে অবগত করার এটা একটা সামান্য প্রচেষ্টা,পরে আরও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে, মহান মনীষীদের ভাবধারা ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে প্রসারিত করা হবে”।

মৌপালে তথ্য সংস্কৃতি দপ্তরের উদ‍্যোগে কবি প্রণাম…পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তরের উদ্যোগে শালবনী ব্লকের মৌপাল দেশপ্রাণ বিদ্যাপীঠে যথাযোগ‍্য মর্যাদায় রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবস পালিত হলো। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট লোকসংস্কৃতি গবেষক মধুপ দে,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী জয়ন্ত সাহা,ছিলেন ভাদুতলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক অমিতেশ চৌধুরী, সংগীতশিল্পী স্বাগত মাইতি,মৌপালের প্রধান শিক্ষক প্রসূনকুমার পড়িয়া প্রমুখ।মধুপবাবু তাঁর বক্তব্যে বাইশে শ্রাবনের গুরুত্ব ও তাৎপর্য সম্পর্কে এবং বর্তমান সময়ে রবীন্দ্রনাথের  আদর্শের অনিবার্য ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।সংগীত পরিবেশন করেন স্বাগত মাইতি ও অমিতেশ চৌধুরী।আবৃত্তি, নৃত্য, সঙ্গীত সহযোগে মনোজ্ঞো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ছাত্র -ছাত্রীরা কবিগুরুর উদ্দেশ্য শ্রদ্ধা  নিবেদন করে।ঝুমুর ও আদিবাসী নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন অনুষ্ঠানে ভিন্ন মাত্রা যোগ করে।প্রধানশিক্ষক প্রসূনবাবু তাঁদের বিদ‍্যালয়ে রবীন্দ্র স্মরণ অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তর সহ আগত অতিথিদের ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানে ছাত্র ছাত্রী দের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রাক্তন শিক্ষক পরিমল মাহাত রচিত ও গীত ঝুমুর গানটি সবার মন জয় করে।সমগ্র অনুষ্ঠানটি সুচারুভাবে সঞ্চালনা করেন আল্পনা ভূঞ্যা ও সমীর বিষুই।