গোয়ালতোড়ে হাতির আক্রমণে এক মহিলা জখম

0
618

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ হাতির আক্রমণে গোয়ালতোড়ে গুরুতর জখম হলেন এক মহিলা। তাঁর নাম জানকী মল্ল (৫২)। মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে। বৃহস্পতিবার সকালে গোয়ালতোড়ের দুধকুদরী এলাকায় ছাতু তুলতে গিয়েছিলেন জানকীদেবী। হঠাৎ দাঁতালের মুখে পড়েন। কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাঁকে তুলে আছাড় মারে হাতিটি। সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয়রা তাঁকে নিয়ে যান গোয়ালতোড় প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। পরে স্থানান্তরিত করা হয় মেদিনীপুর মেডিক্যাল হাসপাতালে। কয়েকবছর আগে একই ভাবে হাতির হাণায় প্রাণ হারিয়েছিলেন তাঁর স্বামী কালু মল্ল। দুধকুদরী এলাকাতেই হাতির মুখে পড়েছিলেন তিনি। হাতির তান্ডবে দুধপাত্রি, চ্যাঙশোল, ধরমপুর, কাকড়াশোল প্রভৃতি গ্রামের বাসিন্দারা আতঙ্কে রয়েছেন। দুদিন ধরে গোয়ালতোড়, গড়বেতার বেশ কয়েকটি হাতি এলাকায় তান্ডব চালাচ্ছে, সন্ধ্যা হলেই লোকালয়ে চলে আসছে। ধানক্ষেত তছনছ করছে বেশি। এছাড়াও সবজি খেত, বাড়িতে খড়ের গাদা তছনছ করছে। এলাকার যুবকরা রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন দল বেঁধে। বনদফতর থেকে হুলা, তেল দেওয়া হয়েছে। সেগুলি নিয়েই হাতি তাড়াতে ব্যস্ত এলাকার যুবকরা। উল্লেখ্য, কংসাবতী নদী পেরিয়ে লালগড়ের জঙ্গলে থাকা ৭০-৮০ টি হাতির পাল জমির ধান খেয়ে, মাড়িয়ে নষ্ট করছে ফসলের। উৎসবের মরশুমে হাতির তান্ডবে ফসলের ক্ষতি হওয়ায় গ্রামবাসীরা দিশেহারা। বুধবার লালগড়ের আমডাঙা গ্রামের শতাধিক বাসিন্দা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান। অভিযোগ, একটি দল নয়, কয়েকটি উপদলে বিভক্ত হয়ে ধান খেতে তাণ্ডব চালাচ্ছে হাতির পাল। এখন ধান গাছে শীষ এসেছে। ওই শীষের স্বাদ দুধের মতো। নতুন ধানের ঐ স্বাদই হাতিগুলিকে ধান খেতে টেনে এনেছে। কিন্তু হাতি তাড়াতে বন দফতরের কোনও উদ্যোগ নেই।