স্রেফ চোর সন্দেহে যুবককে বেঁধে রেখে বেদম প্রহার, শহরের বুকে এমন ঘটনায় হতবাক সকলেই

0
1799

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ স্রেফ চোর সন্দেহ করে আইন নিজেদের হাতে নিয়ে  এক যুবককে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে বেদম প্রহার করল একদল জনতা । বেদম প্রভার করেও ক্ষান্ত হয়নি তারা ,প্রকাশ্য দিবালোকে ওই যুবককে নগ্ন করে গোপনাঙ্গেও চলল লাথি, ঘুসি । কেউ আবার জ্বলন্ত  সিগারেট নিয়ে গোপনাঙ্গে ছ্যাকা লাগাতে গিয়েছে। শনিবার সকালে নক্কারজনক ঘটনাটি ঘটেছে মেদিনীপুরের এলআইসি মোড়ে । বর্বোরোচিত এই এই দৃশ্য দেখে কেউ তো থামাতে আসলোই না বরং কেউ কেউ গোটা ঘটনার ভিডিও রেকর্ডিং কিংবা ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন । যদিও যুবকের দাবি সে কোন কিছু চুরি করে নি কিংবা চুরির উদ্দেশ্যেও আসেনি । কিছুক্ষণ পর কোতোয়ালি থানার পুলিশ এসে অসুস্থ যুবককে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।
শনিবার সকালে ওই যুবককে মেদিনীপুরের এলআইসি মোড়ে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন কিছু লোকজন । যুবককে ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তার কাছ থেকে অসংলগ্ন উত্তর পেতেই সন্দেহ হয় স্থানীয় মানুষদের । আর তারপরই শুরু হয় চড় থাপ্পড় কিল চড় ঘুষি । পথচলতি মানুষজন কৌতূহলবশত উঁকি মেরে দেখেও চলে যাচ্ছে ,কেউ আবার দুই এক চড় ঘুসি লাগিয়েও দিচ্ছে । যুবকটি হাত জোড় করে তার বক্তব্য বারংবার বলতে চাইলেও কেউই তার কথা শুনতে চায়নি ,বরং সকলেই মারধোর করতে এবং ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলো । বিষয়টি ভাল নজরে দেখছেন না মেদিনীপুরের শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ জন । অধ্যাপক শিবরাম চ্যাটার্জী বিষয়টি শুনে অবাক হয়ে বললেন এ আমরা কোথায় বাস করছি ! স্রেফ সন্দেহ করে এক যুবককে এভাবে নির্যাতন করা যায় ! যুবকটি অন্যায় করলে তাকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া যেতে পারতো  এভাবে নগ্ন করে মারধর করা সভ্য সমাজের পক্ষে লজ্জার বিষয় । শিক্ষিকা সোমা চট্টরাজের কথায় আধুনিক জীবনযাত্রায় অভ্যস্ত হয়েও অনেক ব্যক্তিই একটুতেই মাত্রা জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন আর যার পরিণতি কখনো কখনো মারাত্মক হয়ে উঠছে ।
পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমেছে । যদিও বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন এলআইসি মোড়ের লোকজন ।