কয়েকদিন ধরে বহু জায়গায় হামলা চালিয়ে পরিমল কাননে ধাওয়া দাঁতালের, ভাঙল প্রাচীর

0
397

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ বনদপ্তরের নিয়ম আনুযায়ী পার্কে কাউকে ঢুকতে হলে মাথা পিছু দশ টাকা করে দিতে হবে । কিন্তু সেই নিয়মের তোয়াক্কা না করেই শীতের অলস ভোরে প্রাতঃভ্রমনে বেরিয়ে পরিমল কাননের মুল ফটকের সামনে হাজির। ফটকের দরজা বন্ধ দেখে অতিশয় ক্ষোভে প্রাচীর ভেঙ্গেই ঢুকে পড়ল পার্কে ।না ইনি কোনো ভোটার কার্ড ধারী দেশের নাগরীক নন । ইনি হলেন দলমার দামাল গজরাজ ।
             শালবনী , গোয়ালতোড় গড়বেতা , চন্দ্রকোনা টাউন প্রভৃতি এলাকায় বেশ কিছু দিন ধরেই চলছে দলমার দামালদের অত্যাচার । কখনো বিঘার পর বিঘা অালু নিমেষে শেষ করে দিচ্ছে তো কখনো বা ঘর বাড়ি ভেঙ্গে চাল , ধান খাচ্ছে , নষ্ট করছে মাঠের ফসল । এদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী । কয়েক দিন আগেই খাবারের সন্ধানে বেরিয়ে শালবনীর ভীমপুরের বালিবাঁধ গ্রামে কুঁয়ো তে পড়ে একটি বাচ্চা হাতি । আর তার জেরে সেই বাচ্চার মা সারা রাত ধরে গ্রামে অত্যাচার চালায় ।
    বনদপ্তরের উদ্যোগে হাতি তাড়ানোর ব্যাবস্থা করা হলেও হাতির পাল বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে পড়েছে ।
           রবিবার ভোর রাতে চন্দ্রকোনা রোডের আড়াবাড়ির জঙ্গল থেকে একটি হাতি রাজপথ ধরে চলে আসে পরিমল কাননের সামনে । সেখানে ঢোকার চেষ্টা করে। প্রাচীর থাকায় বাধা প্রাপ্ত হয় । আর তার জেরেই পার্কের প্রাচীরের কিছুটা অংশ ভাঙে, নষ্ট করে তারের বেড়া ।
          অবশ্য কিছুক্ষন এই তান্ডব চালানোর পর গজরাজ নিজেই ফের আড়াবাড়ির জঙ্গলের উদ্দ্যেশ্যে রওনা দেয় ।
      সকালে উঠে পার্কের কর্মীরা ভাঙ্গা প্রাচীর দেখে বন দপ্তরে খবর দেয় । বনদপ্তরের এক আধিকারীক জানান আজকেই এই প্রাচীর মেরামতির কাজ আরম্ভ করা হবে ।
             অপর দিকে গোয়ালতোড়ের হুমগড় রেঞ্জের ওদালিয়া বীটের অন্তর্গত আমজোড় গ্রামে বুনো হাতির হামলায় একটি মাটির বাড়ি ভাঙ্গে , ক্ষতিগ্রস্থ হয় অপর আরেক টি মাটির বাড়ি । বাড়ির সদস্যা বালিকা মাল জানান , রাত্রে একটি হাতি এসে বাড়িতে হামলা চালায় । বনদপ্তরে খবর দেওয়া হয়েছে । বনদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে যাদের ঘর ভেঙ্গেছে তাদের আবেদন করার অনুরোধ জানায় । সরকারী নিয়ম অনুযায়ী ক্ষতিপূরন দেওয়া হবে ।