ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে সিজার শুরু হল

0
142
প্রতীকি চিত্র- সূত্রঃ ওয়েব ডেস্ক

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ মুখ্যমন্ত্রীর সফরের আগে শুক্রবার নয়াগ্রাম সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ‘সিজার’ করে সন্তান প্রসবের ব্যবস্থা চালু হল । এ দিন সিজার করে দু’টি সদ্যোজাতের প্রসব করানো হয় এই হাসপাতালে । স্থানীয় বেড়াজাল গ্রামের কবিতা ভুঁইয়ার সিজার করে একটি কন্যাসন্তান হয় । নার্সরা শিশুটির নামকরণ করেন ‘লক্ষ্মী’ । পরে মরাপদা গ্রামের সুস্মিতা সিংহ নামে আর এক প্রসূতির সিজার করে একটি পুত্রসন্তান হয় । হাসপাতাল কর্মীরা শিশুটির নাম দেন ‘কার্তিক’ ।

নয়াগ্রাম সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ৪ জন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ থাকলেও এতদিন সিজার করে সন্তান প্রসবের ব্যবস্থা ছিল না । অভাব ছিল প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের । সিজারের ব্যবস্থা না থাকায় কয়েক মাস আগে নয়াগ্রাম সুপার স্পেশ্যালিটি থেকে এক প্রসূতিকে ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশ্যালিটিতে রেফার করে দেওয়া হয় । ওই প্রসূতিকে দেরিতে রেফার করার ফলে মৃত সন্তান প্রসবের অভিযোগ ওঠে । ঝাড়গ্রাম জেলাসদর থেকে নয়াগ্রামের দূরত্ব প্রায় ৯০ কিমি । এই এলাকা থেকে ভসরাঘাট হয়ে মেদিনীপুর শহরের দূরত্ব ৬০ কিমি । ফলে দুঃস্থ সাধারন বাসিন্দাদের পক্ষে দূরের হাসপাতালে যাওয়াটা কষ্টসাধ্য ব্যপার । গত ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখ নয়াগ্রাম সুপার স্পেশ্যালিটিতে নতুন ব্লাড ব্যাঙ্ক চালু হয়েছে । 

নয়াগ্রামে সিজারিয়ান বিভাগ চালু হলেও গোপীবল্লভপুর সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে এখনও সিজার করে সন্তান প্রসবের ব্যবস্থা চালু হয়নি । তবে গোপীবল্লভপুর সুপার স্পেশ্যালিটিতে গত বুধবার থেকে ইউ.এস.জি পরিষেবা চালু হয়েছে । নয়াগ্রামেও আজ, কাল থেকে ইউ.এস.জি পরিষেবা চালু হওয়ার কথা । গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখ রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিব অনিল বর্মা ঝাড়গ্রাম জেলার তিনটি সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল পরিদর্শন করেছিলেন । নয়াগ্রাম ও গোপীবল্লভপুর সুপার স্পেশ্যালিটিতে সিজার ও প্রয়োজনীয় কিছু বিভাগ চালু না থাকায় বিরক্ত হন সচিব । এরপরই স্বাস্থ্য দফতর থেকে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কেনা হয় । চিকিৎসক ও কর্মীও পাঠানো হয় । 
ঝাড়গ্রামের সি.এম.ও.এইচ অশ্বিনী মাঝি বলেন, “কিছু যন্ত্রপাতির অভাবে এতদিন নয়াগ্রামে সিজার চালু করা যায়নি । এ দিন ওই পরিষেবা চালু হল । গোপীবল্লভপুরে চলতি মাসের শেষের দিকে সিজার বিভাগ চালু করার চেষ্টা হচ্ছে । পরবর্তী সময়ে ওই দু’টি সুপার স্পেশ্যালিটিতে চোখের অপারেশনও চালু হবে । স্বাস্থ্য দফতরের কাছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি চাওয়া হয়েছে ।”