ডাক্তারের ভূল চিকিৎসায় অন্ধ, রোজরাগ নেই, মুখ্যমন্ত্রীর কাছে স্বেচ্ছামৃত্যুর আর্জি আরিফুলের

0
357

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ডাক্তারের ভূল চিকিৎসায় একটি চোখ গিয়েছিল আগেই, এবার দৃষ্টি গেল অন্য চোখেরও। পরিবারের একমাত্র রোজগেরে যুবক আরিফুল তাই নিরুপায় হয়েই মুখ্যমন্ত্রীর কাছে স্বেচ্ছামৃত্যু আবেদন জানিয়েছেন। একই সঙ্গে অভিযুক্ত চিকিৎসকের উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। 

কেশপুর থানার গোলাড় গ্রাম পঞ্চায়েতের আমুড়িয়া গ্রামের বছর বত্রিশের যুবক আরিফুল মল্লিক জানিয়েছেন তাঁর ডান চোখের সমস্যা হওয়ায় বছর দেড়েক আগে এক হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের কাছে তিনি গিয়েছিলেন। দাসপুরের বাসিন্দা অক্ষয় দাস নামে ওই চিকিৎসকের ভূল ওষুধে তাঁর ডান চোখের দৃষ্টি সম্পূর্ণ ভাবে চলে যায়। ধীরে ধীরে ধাপসা হতে থাকে বাঁ চোখের দৃষ্টিও। বাড়িতে বৃদ্ধ বাবা মা ও স্ত্রী ছাড়া আরিফুলের রয়েছে দুই সন্তান। পরিবারের একমাত্র রোজগেরেও তিনি। টিউশন করে সংসার চলত তাঁর। দৃষ্টি হয়ারিয়ে এখন তিনি বেকার। অনাহারে দিন কাটছে গোটা পরিবারের। সাহায্যের জন্য প্রশাসনের দারস্থ হলেও মুখ ফিরিয়েছে সবাই। সহযোগিতা করেন না এলাকার বাসিন্দারাও। 

ওই প্রতিবন্ধী যুবক বলেছেন, “শুধু ভিটেটুকুই টিকে আছে। চোখ অন্ধ  রোজগার নেই। অনাহারে দিন কাটছে। তাই লিখিতভাবে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে স্বেচ্ছামৃত্যুর আবেদন জানিয়েছি। “