কৃষি আধিকারিকের অভিযানে দোকান বন্ধ করে পালাল সার ব্যবসায়ীরা

0
279
Advertisement

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ বেনিয়মের অভিযোগ ছিলই। সেই অভিযোগের তদন্তে সারের দোকানে কৃষি আধিকারিকরা হানা দিতেই কেউ দোকানের ঝাঁপ বন্ধ করে পালালেন, কেউ বা কৃষি আধিকারিকদের পায়ে পড়লেন, শেষবারের মতো দোষ মুকুব করে দেওয়ার জন্য। মঙ্গলবার রাতে এমনই ঘটনার সাক্ষী থাকল পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ভগবানপুর-১ ব্লকের বাসিন্দারা।

সারা রাজ্যের সঙ্গে পূর্ব মেদিনীপুর জেলাতেও সারের কালোবাজির একাধিক অভিযোগ রয়েছে কৃষি দফতরে। অভিযোগগুলি খতিয়ে দেখতে মঙ্গলবার রাতে ভগবানপুর ব্লকের ইয়াশপুর এলাকায় সারের দোকানগুলিতে অভিযান চালান ভগবানপুর-১ ব্লকের কৃষি আধিকারিক শক্তিপদ মঙ্গলের নেতৃত্বে চার সদস্যের প্রতিনিধিদল। তদন্তে নেমে আধিকারিকরা দেখেন, ইউরিয়া সারের সরকারি দাম যেখানে ৬ টাকা, সেখানে কৃষকদের তা বিক্রি করা হচ্ছে ১০টাকা দামে। এমনকি অনুমতি ছাড়াই বিভিন্ন দোকানে নিয়ম বহির্ভূতভাবে মাছের খাবার, কৃষি ওষুধ বিক্রির তথ্যও হাতে নাতে পান তাঁরা।

ভগবানপুর -১ ব্লকের কৃষি আধিকারিক শক্তিপদ মঙ্গল জানান, ”দীর্ঘদিন ধরে সার দোকানে কালোবাজারির অভিযোগ ছিল। এদিন অভিযান চালিয়ে এলাকার ৫ টি দোকানে নিয়ম বহির্ভূতভাবে সার বিক্রির তথ্য পাওয়ার পরই সংশ্লিষ্ট দোকানগুলিকে শোকজের নোটিস দেওয়া হয়েছে।” একই সঙ্গে সার দোকানের মালিকরা যাতে কোনওভাবে অসত্‍ উপায়ে সার বিক্রি করতে না পারে, তার জন্য এলাকার মানুষদের সদা সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

পূর্ব মেদিনীপুর কৃষি নির্ভর জেলা হিসেবেই পরিচিত। ধান, পান, সবজি চাষের পাশাপাশি ভগভানপুর, কাঁথি ও নন্দকুমারে মাছের চাষ হয়ে থাকে। নিয়ম মেনে ওষুধ দেওয়া না হলে যেকোনও সময়ে বড়সড় বিপর্যয় ঘটতে পারে। তাই জেলার পাশাপাশি ব্লকস্তরের কৃষি আধিকারিকরা ব্লকে ব্লকে সার দোকানে অভিযান শুরু করেছেন।

Advertisement