ঝাড়গ্রামের বিভিন্ন এলাকায় তান্ডব চালাচ্ছে দলমার দামালের দল

0
85
প্রতীকি ছবি-ওয়েব ডেস্ক

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ হাতির তান্ডবে পুজোর আনন্দটাই মাটি হল জঙ্গলমহলের বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষের। ঝাড়গ্রামের চূবকা অঞ্চলের বাঁশবেড়, চিতল্বনি, কুমারী, সাঁকরাইল ব্লকের দুধকুন্ডি, জেটিয়া এলাকার মানুষের পুজোর আনন্দটাই মাটি করে দিয়েছে ৭০ থেকে ৮০টি দলমার দামালের দল। ওই সব এলাকার মানুষের অভিযোগ গত কয়েকদিন ধরে হাতির দলটি ফসল খেয়ে, ঘড়বাড়ি ভাঙে তাণ্ডব চালাচ্ছে। বিস্তীর্ণ এলাকার জমির ধান খেয়ে, পায়ে মাড়িয়ে শেষ করছে দলমার এই হাতির দল। দিন কয়েক আগে কুমারী জঙ্গল থেকে কয়েকটি হাতি রেল লাইন পেরিয়ে কংসাবতী নদী অতিক্রম করে লাল্গড়ের জঙ্গলে ঢুকে যায়। পেছনে কুমারীর কাছে রেল লাইন পার হচ্ছিল ৯টি হাতির একটি দল। দলের শেষ হাতিটি ট্রেনে কাটা পড়ে। মেদিনীপুর থেকে ঝাড়গ্রামগামী জঙ্গলমহল প্যাসেঞ্জার ট্রেনের ধাক্কায় হাতিটির মৃত্যু হয়। তবে দলমার হাতিদের বড় দলটি লালগড়ের জঙ্গলে ঢুকে গেলে ২৫-৩০টি হাতির একটি পৃথক দল সাঁকরাইলের বনকাটি, জটিয়া, দুধকুন্ডি ও ঝাড়গ্রামের বালিভাসা এবং চুবকা অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকার পুজোর দিনগুলিতে তাণ্ডব চালিয়েছে। এখনও চলছে সেই তাণদব। ফসল রক্ষা করতে গ্রামবাসীরা পালা করে রাত জাগছেন। ঝারগ্রামের ডি এফ ও বাসব্রাজ হোলেইড়ি জানান, গত কয়েকদিন ধরে ৭০-৮০টি হাতির পাল বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাঘুরি করায় ফসলের ক্ষতি হয়েছে। কয়েকটি বাড়ি ঘরও ভেঙেছে তারা। তবে ফসলের ক্ষতির পরিমান এখনও হিসেব হয়নি। এদিকে লালগড়ের জঙ্গলে ঢুকে যাওয়া হাতির দল তিন ভাগে ভাগ হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে। দলমার এই হাতির দলগুলিকে ফের দলমার জঙ্গলে ফেরত পাঠাতে তৎপর হয়েছে বন দফতর। সব মিলিয়ে হাতির তাণ্ডবে ঝাড়গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকার আতঙ্ক দেখা গিয়েছে।