শহরের বুকে আগ্নেয়াস্ত্র সহ ৫ জন গ্রেফতারের ঘটনায় বাড়ছে আতঙ্ক, ধৃতরা পুলিশি হেফাজতে

0
1105

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ শহরের মধ্য থেকেই বন্দুক উদ্ধার ও দুষ্কৃতকারিরা বন্দুক সহ রাঙামাটির সূর্যনগরে ঘর ভাড়া করেছিল সেটা নিয়েই আতঙ্কিত শহরবাসী। রবিবার সন্ধ্যায় রাঙামাটির সূর্যনগরে বেণু ঘোড়ই-এর বাড়ি থেকে ২টি নাইন এম এম পিস্তল, ৪টি ওয়ানশটার, তালা ভাঙার সরঞ্জাম, ১০টি মোবাইল, একটি মোটর সাইকেল উদ্ধার করে জেলা পুলিশ। গ্রেফতার করা হয়েছে ৫ দুষ্কৃতকারিকে। ৫ জন হল কলকাতার মহেশতলার রকি সিং, দিল্লির কারালার সুরেন্দ্র সিং, নিউ দিল্লির আমল বিহারের বাসিন্দা পুতিন সিং, ঝাড়খন্ডের বাঁকা সিলতার রাজীব সিং, বিহারের মনসুর আলম। ধৃত ৫ জনকে সোমবার মেদিনীপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক তাদের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। জেলা পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার রবিবার রাতেই সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেছিলেন ধৃতদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে সব দিক খতিয়ে দেখা হবে।

কি কারণে তিন জেলা ও ভিন রাজ্যের দুষ্কৃতকারিরা আগ্নেয়াস্ত্র সহ মেদিনীপুরে ঘাঁটি গেড়েছিল তা নিয়ে নানা জল্পনা ছড়িয়েছে। কেউ বলছেন নিছক ডাকাতির উদ্দেশ্যেই দুষ্কৃতকারিরা জড়ো হয়েছিল। খড়গপুর মেদিনীপুর সহ জেলার বিভিন্ন জায়াগায় চুরি ডাকাতি করে নিশ্চিন্তে থাকার জন্য শহরের এক প্রান্তিক এলাকায় ভাড়া নিয়েছিল দুষ্কৃতকারিরা। এর পেছনে শহরেরও কেউ কেউ জড়িত রয়েছে বলে জল্পনা ছড়িয়েছে শহরে। কেউ আবার এর মধ্যে রাজনৈতিক প্রশয় দেখতে পাচ্ছেন। অনেকের মতে রাজনৈতিক ক্ষমতা দখল করতে দুষ্কৃতকারিদের এনে জড়ো করা হয়েছিল।

রাঙামাটি এলাকায় এমন ঘটনার জেরে শহর জুড়েই আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ইতিপূর্বে এতগুলো বন্দুক সহ ৫ দুষ্ক্রৃতী ধরা পড়ার ঘটনা ঘটেনি। রাঙামাটির বাসিন্দা সুশান্ত ঘোষ বলেন এমন ঘটনায় সত্যিই আমরা আতঙ্কিত, এর পেছনে সঠিক রহস্যটা উন্মোচিত হোক, এবং এতে যে বা যারা জড়িত তাদেরও শাস্তি হোক। স্থানীয় বাসিন্দা শিক্ষিকা অন্তরা ঘোষের কথায় এ যেন এক অচেনা মেদিনীপুর, আগে কখনো এমনটা শুনিনি, সত্যিই ঘটনাটা জানার পর আতঙ্কে রয়েছি, এসব বন্ধ হওয়া উচিত।