বিনপুরে তৃণমূল কর্মীকে মারধরের অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে

0
2057

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ফের তৃণমূল কর্মীর উপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় তৃণমূলের এক কর্মীকে বেধড়ক মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই তৃণমূল কর্মীকে ঝাড়গ্রামে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যা ঝাড়গ্রামে জেলার বিনুপুর থানার হাড়দা এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। তৃণমূলের অভিযোগ হাড়দা বুথের তৃণমূল কর্মী বাপি মণ্ডলকে বেধড়ক মারধর করে বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলা সম্পাদক রাজেশ মণ্ডল সহ মোট ছয়জন ব্যাক্তি। এদিন রাত সাতটা নাগাদ দলীয় কার্যালয় থেকে নিজের বাড়ি ফিরছিলেন বাপি মণ্ডল। অভিযোগ, বাপি মণ্ডলকে তাঁর বাড়ির সামনে বেজেপির জনা ছয়েক নেতা কর্মী ঘিরে ধরে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করেছেন। আহত বাপি মণ্ডলকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে হাড়দাতেই তৃণমূলের বুথ কর্মী বিমল মণ্ডলকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছিল বিজেপির বিরুদ্ধে। এদিন আবারও এই একইভাবে মারধরের ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে হাড়দা অঞ্চলটি বিজপির দখলে যায়। এদিন এই ঘটনার বিষয়ে হাড়দা অঞ্চলে তৃণমূল সভাপতি সেন্টু সাহা বলেন আমরা পঞ্চায়েতের কোনও কাজে বাধা দিতে যাইনি। বিজেপির রাজেশ মণ্ডল ও তার দলবল বারেবারে আক্রমণ করছে আমাদের কর্মীদের উপর। এদিন আমাদের বাপি মণ্ডলকে মেরেছে। এর আগে বিমল মণ্ডলের উপর গুলি ছুড়ে ছিল। বিজেপি এলাকায় শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। এই বিষয়ে বিএজপির ঝাড়গ্রাম জেলা সাধারণ সম্পাদক অবনী ঘোষ বলেন ব্যাক্তিগত ঘটনা হোক বা অন্য কিছু সব কিছুতেই বিজেপির নাম জড়ানো হচ্ছে। হাড়দা অঞ্চল যেহেতু বিজেপি দখল করেছে, তাই কিছু হলেই রাজেশ মণ্ডলের নাম জড়ানো হচ্ছে।