“মানবধর্ম ও রবীন্দ্রনাথ” শীর্ষক সংস্কৃতিক সন্ধ্যা আয়োজন করলো খড়গপুরের মৃদঙ্গম্‌ সহ ১৪টি সংস্কৃতিক সংস্থা

0
56

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ভারতীয় গণনাট্য সংঘের খড়গপুর মৃদঙ্গম শাখার পরিচালনায় শনিবার অনুষ্ঠিত হল একটি অভিনব অনুষ্ঠান ” মানবধর্ম ও রবীন্দ্রনাথ” । এই অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়েছিল খড়গপুর শহরের সুভাষপল্লী কালি মন্দিরে। এই সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় মৃদঙ্গম সংস্থার সঙ্গে খড়গপুর শহরের আরো ১৪ টি সংস্থা একত্রিত হয়ে ১৫৭ তম রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তি উপলক্ষ্যে খড়গপুরবাসীর কাছে তুলে ধরেছিল কবিগুরুর মানবতাবাদী আদর্শকে। উপস্থিত ছিলেন এলাকার বিশিষ্ট শিল্পী শ্রী কমল চ্যাটার্জ্জী , শ্রীমতি ইন্দ্রানী চ্যাটার্জ্জী, শ্রীমতি পালোমা মিত্র এছাড়া কয়েকটি সংগীত সংস্থা – খেয়া, ঝিনঝোতি, ্সুভাষপল্লী উইমেন্স অরগানাইজেশন, মেঘমল্লার, প্রিয়কুমার সংগীত চর্চ্চা কেন্দ্র, পূরবী এবং বিশিষ্ট রাজ্যেস্তরে পুরস্কার প্রাপ্ত নৃত্য সংস্থা – ছন্দনীড়। এই সমস্ত সংস্থাগুলির প্রয়াস ছিল ধর্মের নামে ভেদাভেদ ভূলে কবিগুরুর আদর্শে মানবধর্ম পালনে ব্রতী হওয়া। 

অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী নৃত্য পরিবেশন করে নৃত্যমঞ্জুরী নৃত্য সংস্থা। অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষণ ছিল সমস্ত সংস্থার প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি গ্রান্ড ক্যোয়ার , যেখানে প্রায় ৩০ জন সংগীত শিল্পী যৌথভাবে মঞ্চে সংগীত পরিবেষণ করে “এসো হে আর্য এসো অনার্য…” এবং  ছন্দনীড় নৃত্যসংস্থা কর্তৃক পরিবেষিত হয় রবীন্দ্রনাথের সবচেয়ে প্রিয়  অস্পৃষ্যতা, কুসংস্কার বিরোধী নৃত্যনাট্য “চন্ডালিকা”-র নির্বাচিত কিছু অংশ। অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রনাথের মানবতাবাদী আদর্শ উন্মোচন করেন বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তণ বিভাগীয় প্রধান ডঃ তপন কুমার পাল এবং ভারতীয় গণনাট্য সংস্থার রাজ্য সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শ্রী রামকৃষ্ণ সরকার। সংস্থার পক্ষে জানানো হয়েছে যে বর্তমান দিনে ধর্মের ভেদাভেদ ও মৌলবাদকে ছুড়ে ফেলে খড়গপুর শহরে ঐক্যের বাতাবরণ তৈরী করতেই বিশ্বমানবতাবাদের পথপ্রদর্শক কবিগুরুর আদর্শকে পাথেও করে মৃদঙ্গম সহ অন্যান্য সংস্থাগুলি ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি আয়োজন করেছিল।