সবং-ক্ষত

0
18
৩০ তম বর্ষ, ১৪১ সংখ্যা, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৩ পৌষ ১৪২৪

সবং বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপির ভোটবৃদ্ধিতে যে খোদ দলের শীর্ষ নেতা যিনি আবার দেশের প্রধানমন্ত্রী সেই নরেন্দ্র মোদীর অভিনন্দনবার্তা এসে পৌঁছবে রাজ্য দফতরে তা দিলীপ ঘোষরাও হয়তো ভাবতেই পারেননি । অথচ এমন ঘটনা ঘটল তখন নিশ্চয়ই সবারই অবাক হওয়ার পালা । যদিও এই কেন্দ্রে বিজেপির জয় আসেনি। তাতে কী, এই সবং কেন্দ্রে ২০১৬র নির্বাচনের পর এক বছর বাদেই যে এক লাফে প্রায় ৩২ হাজার ভোট বেড়ে যাবে তা কী ভাবতে পেরেছিলেন দিলীপবাবুরাও? গত বিধানসভা নির্বাচনে যখন দলীয় প্রার্থীর ঝুলিতে আসে মাত্র ৫ হাজার ৬১০ টি ভোট, এবার সেখানে ৩৭ হাজার ৪৭৬ ভোট কী কম কথা নাকি। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে তো এটা বিশাল সাফল্য। যে সবংয়ে দলের তেমন পোক্ত সঙ্গঠনই নেই, বুথে বুথে দলীয় কর্মীর সংখ্যাও তেমন কিছু ছিল না, সেখানে এক বছরে এত ভোট বাড়লে তা কেন্দ্রীয় নেতারাও খুশি হয়ে ঊঠবেন। গুজরাতে ক্ষমতায় না এলেও কংগ্রেসের ভোট বৃদ্ধিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলতে পারে ওখানে বিজেপির নৈতিক পরাজয় ঘটেছে তাহলে সবং কেন্দ্রের ভোটে দলের এই সাফল্যে রাজ্য ও জেলা নেতৃত্বকে ধন্যবাদ জানানোর মওকাই বা ছাড়বেন কেন নরেন্দ্র মোদী। যদিও গুজরাতে বিজেপির আসন ও ভোট কমে যাওয়ার কারনেই মমতা তাঁর এমন প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। এই সবংয়ে কিন্তু মমতার দলের ভোট বেড়ে গিয়েছে বিস্তর এবং দ্বিতীয় স্থানও দখল করে নিয়েছে সিপিএম। তবুও মোদীজির দলের এই ভোট বৃদ্ধির তারিফ করেছেন সঙ্গত কারনেই। এক দলীয় কর্মীদের উজ্জীবিত করা, দুই শাসক দলকে সমঝে দেওয়া বিজেপির প্রতি মানুষের আস্থা বাড়ছে এই রাজ্যেও। নিঃসন্দেহে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে বিজেপির এই ভোটবৃদ্ধি উদ্বেগের কারণ হতে পারে। দ্বিতীয় স্থানে সিপিএম এটা হয়তো তার কাছে স্বস্তির কারণ, কিন্তু এক বছরে বিজেপির ভোট ৩২ হাজার বেড়ে যায় কী করে সেটা তো তাঁর কাছে সহজ ব্যাপার হতে পারে না। বিশেষ করে এই মুহুর্তে বিজেপিই যখন তাঁর দলের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠেছে। মমতার কাছে যেটা খুবই অস্বস্তির বিষয় তা হ’ল সবংয়ের ১,২,৮ এবং ৯ নম্বর অঞ্চলের কোনও বুথে যেখানে ১৯, ৩৫, ১৫ বা ২৫ টি ভোট এবার সেখানে ১৭৩, ২৭৬, ১৭০, ২৪৫ টি ভোট । এমন সাফল্য বাকি তিনটি অঞ্চলের বুথে বুথে । স্বভাবতই এর পিছনে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব কাজ করেছে কিনা সেই নিয়ে বিশ্লেষণ শুরু করে দিয়েছেন তৃণমূল ভবন এবং কালীঘাটের ভোট ম্যানেজাররা । সামনেই পঞ্চায়েত ভোটের আগে দলের বিপুল ভোট প্রাপ্তি সত্বেও সবং্যের এই ক্ষত মমতা বন্দোপাধ্যায়ের কাছে সতর্কতার শিক্ষা দিয়ে গেল তা বলাই বাহুল্য।