শহরে যথোচিত মর্যাদায় মহরম পালিত, শোভাযাত্রায় সম্বর্ধনা অনুষ্ঠান পুরসভার

0
138

পত্রিকা প্রতিনিধিঃ মুহররম ইসলামিক বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস। চারটি পবিত্রতম মাসের মধ্যে এটি একটি। মুহররম শব্দটি আরবী যার অর্থ পবিত্র, সম্মানিত। প্রাচীনকাল থেকে মুহররম মাস পবিত্র হিসাবে গন্য। মহররমের ১০ তারিখ বিশেষ মর্যাদাসম্পন্ন দিন, যাকে আশুরা বলা হয়ে থাকে। মহররম মাসের পরবর্তি মাসের নাম সফর। হযরত মুহাম্মদ-এর দৌহিত্র ইমাম হুসাইন এই দিন কারবালার ময়দানে ইয়েজিদের হাতে মৃত্যুবরণ করেন। আর সেই দিনটিকে স্মরণে রেখে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ প্রতিবছর এই দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে আসছে।এদিন সর্বত্র দিনটি পালন করা হয়েছে।ধর্মীয় রীতিনীতি মেনে শোভাযাত্রা বের করা হয় মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের পক্ষ থেকে।চলে লাঠি খেলা ও কৃচ্ছসাধনা।
রবিবার সর্বত্র দিনটি পালন করা হয়। ধর্মীয় রীতিনীতি মেনে শোভাযাত্রা বের করা হয় মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের পক্ষ থেকে। চলে লাঠি খেলা ও কৃচ্ছসাধনা। রবিবার মেদিনীপুর শহর সহ জেলার বিভিন্ন জায়গায় শোভাযাত্রা বের হয়। মেদিনীপুর পুরসভার ও টাউন মুসলিম কমিটির পক্ষ থেকে গোলকুঁয়া চকে বিভিন্ন মহরম কমিটিকে সম্বর্ধনা জানানো হয়। পুরপ্রধান প্রণব বসু, উপপুরপ্রধান জীতেন্দ্রনাথ দাস, মেদিনীপুর টাউন মুসলিম কমিটির সম্পাদক রাজদান আলি আলকাদেরি সহ বিভিন্ন ্কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন। গোলকুঁইয়াচক সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটির পক্ষ থেকে বিভিন্ন মহরম কমিটিকে পুষ্পস্তবক, উত্তরীয়, মিষ্টির প্যাকে্ট দিয়ে সম্বর্ধনা জানানো হয়। উপস্থিত ছিলেন ডিস্ট্রিক্ট চেম্বার অব কমার্স অ্যাণ্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আনন্দ গোপাল মাইতি, শিক্ষক দীপঙ্কর সান্নিগ্রাহী, চিকিৎসক ডাঃ বদ্রীনাথ আঢ্য প্রমুখ। মহরমে সবাইকে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার আহ্বান জানানো হয়। সম্প্রীতি রক্ষার্থে এদিন শহিদ ক্ষুদিরাম সব পেয়েছির আসরের পক্ষ থেকেও শোভাযাত্রা বের হয়। এতে সামিল হন কাউন্সিলর অনিল চন্দ্র দলবেরা, সৌরভ বসু, অনর মাইতি, পূর্ণেন্দু জানা, সেখ বাসির, সেখ পাপ্পু প্রমুখ। এদিন বিভিন্ন মহল্লার পক্ষ থেকে শোভাযাত্রা বের করা হয়।