ঘাটাল মাস্টার প্লান রুপায়ন সংগ্রাম কমিটির বিক্ষোভ সমাবেশে পাল্টা আক্রমণ তৃণমূলের

0
98
পত্রিকা প্রতিনিধিঃ ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান রুপায়ন সংগ্রাম কমিটির বিক্ষোভ, অবরোধকে ঘিরে ধুন্ধুমার। ঘাটালের পাঁশকুড়া স্ট্যান্ডে কমিটির অবরোধ, অবস্থান বিক্ষোভে লাঠি সোটা নিয়ে হামলা চালানোর অভিযোগ তৃনমুল ও ঘাটাল কলেজ তৃনমুল ছাত্রপরিষদের উপর। অবরোধ তুলতে প্রথমে বচসা থেকে শুরু হয় হাতাহাতি। লাঠি নিয়ে অবরোধকারীদের বেধড়ক মারধর করে এবং ভেঙ্গে দেওয়া হয় মঞ্চ এমটাই অভিযোগ কমিটির সম্পদাক নারায়নচন্দ্র নায়েক এর।ঘটনাস্থলে ঘাটাল থানার পুলিশ পরিস্থিতি সামলানোর চেষ্টা করে। ঘটনার সূত্রপাত ঘাটালের বিধায়ক শঙ্কর দোলই এর অবরোধ তুলতে আসাকে কেন্দ্র করেই।কমিটির তরফে জানানো হয়, সকাল থেকে শান্তিপুর্ন ভাবেই বিক্ষোভ কর্মসূচী চলছিল।দুপুর ১২ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত পাঁশকুড়া স্ট্যান্ডে পথ অবরোধে বসে কমিটির সদস্যরা। খবর পেয়ে আসে ঘাটাল থানার পুলিশ।অবরোধ তুলতে পুলিশ প্রস্তাব দেয় আলোচনার। কমিটির দাবী ছিল ঘাটাল মহকুমা শাসকের দপ্তরে বিষয়টি নিয়ে আলোচনার। অবরোধ চলাকালিন কমিটির চার সদস্যর একটি প্রতিনিধি দল পুলিশি মধ্যস্থতায় মহকুমা শাসকের সাথে আলোচনায় গেলে সে সময় জনা কুড়ি কর্মীকে নিয়ে অবরোধ তুলতে ঘটনাস্থলে আসেন বিধায়ক শঙ্কর দোলই। বিধায়ক অবরোধ তুলে নিতে বললে তাতে রাজি হননি কমিটির সদস্যরা। শুরু হয় বচসা। আচমকা কলেজ থেকে তৃনমুল ছাত্র পরিষদের কর্মীরাও উপস্থিত হয়ে কমিটির সদস্যদের উপর মারধর চালায় বলে অভিজোগ, ভাঙ্গচুর করা হয় মঞ্চ। পুরোটাই বিধায়ক শঙ্কর দোলই এর মদতে ও তার উপস্থিতিতে  হয় বলে দাবী কমিটির। ঘটনায় কমিটির ২৪ জন সদস্য আহত ও ২ জন গুরুতর আহত বলে জানা যায়। আহতদের ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়। ঘটনায় ঘাটাল থানায় অভিযোগ করেন কমিটির সম্পাদক নারায়ন চন্দ্র নায়েক। তিনি আরও বলেন,পুলিশ উল্টে তাদের চারজন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে এবং মঞ্চে থাকা বেশ কিছু সামগ্রী বাজেয়াপ্ত করেছে। অবিলম্বে চার জনকে ছাড়তে হবে এবং আটক করা জিনিসপত্র ফেরত দিতে হবে। ঘটনা সম্পর্কে বিধায়ক শঙ্কর দোলই এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে কোনও মন্তব্য করতে চাননি। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে ঘাটাল সড়ক। এলাকায় উত্তেজনারও সৃষ্টি হয়।